রসুনের উপকারিতা ও রোগ প্রতিরোধে রসুন

রসুনের উপকারিতা ও রোগ প্রতিরোধে রসুন: রসুন সাধারণত একটি মসলা জাতীয় খাদ্য উপাদান। রান্নার মসলা হিসেবে রসুনের ব্যবহার বহুকাল ধরে চলে আসছে। কিন্তু শুধু রান্নায় স্বাদকে বাড়ানোর ক্ষেত্রে নয়, রসুনের নিজস্ব পুষ্টিগুণ রসুনকে পৌঁছে দিয়েছে মসলার অন্যতম তালিকার মধ্যে। তাই রান্নার পাশাপাশি রসুন স্বাস্থ্য ভাল রাখার ঔষধ হিসেবেও কাজ করে।

অনেক বছর আগে থেকে রসুন ঔষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। খালি পেটে রসুন খেলে বিভিন্ন রোগ দূর হওয়ার পাশাপাশি অনেক রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধও গড়ে তোলে। খালি পেটে রসুন খাওয়া হলে এটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক এর মত কাজ করে।

সকালে নাস্তার পূর্বে রসুন খেলে এটি আরও উপকারিভাবে কাজ করে। বিশেষ করে খালি পেটে রসুন খাওয়ার ফলে ব্যাকটেরিয়াগুলো উন্মুক্ত হয় এবং তখন রসুনের ক্ষমতার কাছে ব্যাকটেরিয়াগুলো হেরে যায়। ফলে শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াসমূহ আর রক্ষা পায় না। এছাড়া রসুন উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

রসুনের উপকারিতা ও অপকারিতা

রসুনের নানা রকম উপকারিতা যেমন রয়েছে তেমনি অপকারিতা রয়েছে। নিচে রসুনের কয়েকটি উপকারিতা তুলে ধরা হলো।

মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করে

রসুনে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান শরীরে প্রবেশ করা মাত্র এমন কাজ শুরু করে যে নানাবিধ নিউরোডিজেনারেটিভ অসুখে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা হ্রাস পায়। বিশেষত অ্যালঝাইমার্স মতো রোগ দূরে থাকে।

হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে

রসুনে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রপাটিজ বিদ্যমান রয়েছে। এই উপাদানটি একদিকে যেমন শরীরে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়, তেমনি উচ্চ রক্তচাপকেও নিয়ন্ত্রণে রাখে। আর একথা তো সবারই জানা আছে যে এই দুটি জিনিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে তো হার্টের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটার আশঙ্কা একেবারেই থাকে না। রক্তে শর্করার মাত্রাকে স্বাভাবিক রাখার মধ্যে দিয়ে ডায়াবেটিসের মতো রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতেও রসুনের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে।

ব্লাড প্রসোর নিয়ন্ত্রণে থাকে 

রসুনের মধ্যে থাকা বায়োঅ্যাকটিভ সালফার, রক্তচাপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। শরীরের সালফারের ঘাটতি দেখা দিলে তবেই রক্তচাপ বাড়তে শুরু করে। এই কারণেই তো দেহের সালফারের ঘাটতি মেটাতে নিয়মিত এক কোয়া করে রসুন খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।

হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি

রসুনে থাকা একাধিক উপকারি উপাদান স্টমাকের ক্ষমতা বাড়ায়। ফলে বদ-হজম এবং নানাবিধ পেটের রোগের প্রকোপ কমতে পারে এক নিমিষে।

সংক্রমণ সব দূরে থাকে

রসুনে থাকা একাধিক কার্যকরি উপাদান ব্যাকটেরিয়া, ফাঙ্গাসসহ একাধিক জীবাণুর সংক্রমণ আটকাতে যে কোনও আধুনিক মেডিসিনের থেকে শরীরে তাড়াতাড়ি কাজে আসে। প্রতিদিন ১-২ কোয়া রসুন খেলে এমন ধরনের সব রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাই থাকে না।

ঠান্ডা ও সর্দির নিরাময়

যারা প্রতিনিয়ত ঠান্ডা ও সর্দির সমস্যায় ভোগে থাকেন তাদের জন্য রসুন খাওয়া খুবই উপকারী। রসুনের সাথে ২-৩ টি লবঙ্গ খেলে আর ভালো উপকার পাওয়া যায়। তাছাড়া আপনি রসুনের কয়েকটি কোয়া চায়ের সাথে খেতে পারেন যাতে আপনার ঠান্ডা ও সর্দির নিরাময় পাশাপাশি রোগ প্রতিরোগ ক্ষমতা বাড়ায়।

রক্ত বিষমুক্ত হয়

প্রতিদিন এক গ্লাস গরম পানির সাথে রসুনের দুটি কোয়া খেলে রক্তে থাকা নানা বিষাক্ত উপাদান শরীর থেকে বেরিয়ে যেতে শুরু করে। ফলে ধীরে ধীরে ত্বক এবং শরীর উভয়ই চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

ত্বকে যত্নে রসুন

রসুন আমাদের ত্বকের কোলাজেনের হ্রাসের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। যার ফলে আমাদের ত্বকের মসৃণতা বজায় থাকে। তাছাড়া এটি ত্বককে ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে। যার ফলে একজিমার ও দাদরোগের মতো রোগ হয় না।

চুলের যত্নে রসুন

আমরা অনেকে জানি পেঁয়াজ চুলের জন্য খুবই উপকারী। একই ভাবে রসুনও চুলের জন্য খুবই উপকারী। রসুনের গরম তেল অথবা রসুন পিষে মাথায় ব্যবহার করলে তা মাথায় চুল পড়া বন্ধ করে, মাথার খুশকি দূর হয়, নতুন গজাতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন: খালি পেটে যেসব ফল খেতে হবে, শরীরের জন্য খুবই উপকারি।

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা কমাতে রসুন

আমাদের মধ্যে অনেকে গ্যাস্ট্রিক সমস্যায় ভুগে থাকি। নিয়মিত সকালে বেশি বেশি পানি আর রসুন খেলে গ্যাস্ট্রিক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

ক্যান্সার প্রতিরোধে রসুন

প্রতিদিন রসুন খেলে পাকস্থলী এবং কলোরেকটাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। তাই যাদের পরিবারে এই ধরনের ক্যান্সারের ইতিহাস রয়েছে তারা রসুন খাওয়া কোনও দিন বন্ধ করা উচিত নয়।

হাড়ের শক্তি বাড়ায়

মানুষের শরীরের হাড়ের বৃদ্ধি ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত চলমান থাকে। কিন্তু ২০ বছর পর হার বৃদ্ধি ও ক্ষয় সমান হারে চলতে থাকে। কিন্তু ৪০ বছর এর পর ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের হারের ক্ষয়ের মাত্রা একটু একটু করে বাড়তে থাকে। মহিলাদের মেনোপজ বা ঋতুস্রাব বন্ধের পর শরীরে ইস্ট্রোপেন হরমোনের পরিমাণ কমে যায়। যার ফলে হার ক্ষয় হয়। প্রতিদিন ২ গ্রাম রসুন খেলে তা ইস্ট্রোজেনের পরিমাণ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। যার ফলে হার ক্ষয়ের মাত্রা হ্রাস পায় ও হারের শক্তি বৃদ্ধি পায়।

রসুনের  অপকারিতা

<yoastmark class=

রসুনের উপকারি দিক গুলোর পাশাপাশি কিছু অপকারিতাও রয়েছে। তাই রসুন খাওয়ার অপকারিতাও আমাদের জানতে হবে। রসুনের অপকারিতা ও ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে নিম্নে আলোচনা করা হলো-

  • অতিরিক্ত রসুন খেলে যকৃতের ক্ষতি হতে পারে।
  • রসুন খেলে বমি হতে পারে।
  • খালি পেটে রসুন খেলে ডায়রিয়া হতে পারে।
  • কাঁচা রসুন খেলে মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে।
  • খালি পেটে কাঁচা রসুন খেলে বুক জ্বালাপোড়া, বমি বমি ভাব ও বমি হতে পারে।
  • শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন এমন মায়েদেরও রসুন থেকে বিরত থাকতে হবে কারণ তা দুধের স্বাদ পাল্টে দেয়।
  • গর্ভবতী নারীদের রসুন খেলে প্রসব যন্ত্রণা বেড়ে যায়। (গর্ভাবস্থায় কাঁচা রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকুন)
  • অতিরিক্ত রসুন খেলে রক্তচাপ অনেক কমে যায়। রক্তচাপ কমে গেলে মাথা ঘুরাতে পারে ও নিম্ন রক্তচাপ জনিত সমস্যা দেখা দিতে পারে।
  • অতিরিক্ত রসুন খাওয়ার কারণে ‘আইরিস’ ও ‘কর্নিয়ার মাঝে রক্তক্ষরণ ঘটতে পারে। ফলে, হারাতে পারে দৃষ্টিশক্তি।

সেক্সে রসুনের উপকারিতা কি

আমরা অনেকেই সেক্সে রসুনের উপকারিতা কি সম্পর্কে জানতে চাই আবার অনেকেই আমরা এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানি। রসুন যদিও খেতে খুব একটা মুখরোচক নয় তবে যৌন সমস্যায় রসুন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। যারা মূলত দ্রুত বীর্যপাত কিংবা ইরেকটাইল ডিসফাংশন এর মত সমস্যাগুলোতে ভুগছেন তারা শুধুমাত্র রসুন খেয়ে এ সকল সমস্যা দূর করতে পারেন।

সেক্সে রসুনের উপকারিতা কি? রসুনে থাকা এন্টিবায়োটিক এবং অন্যান্য উপাদানগুলো মানবদেহে বীর্যের মান উন্নয়নে সহায়তা করে। তাছাড়া যে সকল পুরুষ এবং মহিলারা দৈহিক মিলনের খুব একটা আগ্রহ পান না তাদের জন্য রসুন অত্যন্ত নিরাপদ সমাধান।

যৌন চাহিদা বৃদ্ধিতে রসুন খাওয়ার নিয়ম

অনেকেই জানতে চান সেক্স বৃদ্ধির উপায় কি? অনেক সময় শুধুমাত্র যৌন চাহিদা কম থাকার কারণে আমাদের সমাজে অনেকের দাম্পত্য জীবন নষ্ট হতে দেখা যায়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতেও আপনি নিয়মিত কাঁচা রসুন খেতে করতে পারেন।

যৌন স্বাস্থ্যে রসুনের উপকারিতা

  • রসুন কাম উদ্দিপনা বাড়াতে পারে
  • টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় রসুন
  • রসুন পুরুষের বীর্য তৈরি করতে সাহায্য করে
  • রসুন লিঙ্গ শক্তিশালি এবং শক্ত করতে সাহায্য করে থাকে
  • পুরুষদের দমনী শক্তি বাড়াতে পারে
  • পুরুষের শুক্রাণু বৃদ্ধি করে
  • দ্রুত বীর্যপাত রোধে সাহায্য করে
  • ইরেক্টাইল ডিসফাংশন সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে রসুন
  • যৌন আত্মবিশ্বাস বাড়ায় রসুন

মহিলাদের যৌন সমস্যায় রসুনের উপকারিতা

  • নারী ও পুরুষ উভয়েরই যৌন ইচ্ছা বা লিবিডো বাড়িয়ে দেয় রসুন ।
  • রসুন স্তনের গড়ন সুন্দর করতে সহায়তা করে।
  • রসুন মহিলাদের কাম উদ্দিপনা বাড়াতে পারে।

শেষ কথা

আমাদের শরীরের অনেক সমস্যার সমাধানের জন্যই রসুন খুব উপকারি। তবে রসুন সবার শরীরের জন্যই যে ভালো ফল নিয়ে আসবে তা কিন্তু নয়। রসুনের কিছু কিছু গুণের জন্য আপনার শারীরিক সমস্যা বেড়েও যেতে পারে। রসুনের উপকারিতা ও ক্ষতিকর উভয় দিকই রয়েছে। খালি পেটে রসুন খেলে এমন কিছু উপকার হয়, যেটা অন্য খাবারের সাথে রান্না করা অবস্থায় খেলে হয় না। রসুন শুধু বিভিন্ন ধরণের রোগ দূরই করে না, পাশাপাশি বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি করে। তাই আমাদের নিয়ম জেনে প্রতিদিন রসুন খাওয়া উচিত।